Home / Islam / ইসলামের বিভিন্ন নাম নিয়ে বিতর্ক | Anxiety to Distort Islam
Anxiety of Distort Islam
Anxiety of Distort Islam

ইসলামের বিভিন্ন নাম নিয়ে বিতর্ক | Anxiety to Distort Islam

ইসলামের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ নাম ব্যবহার করে কতিপয় বিতর্কিত ইসলামী দলগুলো ইসলামকে বিকৃত করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছে। ইসলামী আন্দোলন ইসলামের এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় যা রাসূল (সঃ) এর নবুয়তের ২৩ বছরের ওহী নাযিল ও সেই মোতাবেক আমল করে ইসলাম প্রতিষ্ঠার আন্দোলন,যার মাধ্যমে ইসলাম বিশ্বব্যাপী বিস্তৃত হয়েছে, আর সেই শিক্ষা মোতাবেক ক্বেয়ামত পর্যন্ত সমস্ত উম্মতকে শিক্ষা গ্রহণ করে সেই মোতাবেকই আমল করতে হবে,তাই যুগ যুগ ধরে ইসলামী আন্দোলনের দাওয়াতের কাজ করে আসছেন বিভিন্ন ইসলামী ব্যক্তিত্বরা, বড়ই পরিতাপের বিষয়,আমাদের দেশেও ইসলামী আন্দোলন নামে দল আছে, কিন্তু ইসলামী আন্দোলন দলের নাম হলেও কাজ চলে অন্যটা,যা বাপ দাদার ধর্মে রূপান্তরিত, আগেই বলেছি পীর দাবি করা শুধু নবুয়তের দাবি নয়,মানুষকে জান্নাতে নেয়ার নামে প্রতারণা যা স্পষ্ট শিরক,কাউকে জান্নাত দেয়ার ঘোষনা পৃথিবীতে কোন নবী রাসূলরা ও বলেন নি, এই ক্ষমতা কোন নবী রাসূলকেও দেয়া হয়নি,অথচ ইসলামী আন্দোলন নামে বিভিন্ন ইসলামী দলের বিরুদ্ধে কুৎসা রটিয়ে বাতিলের তাবেদারী করে ব্যবসা খুলে বসেছে এক শ্রেনীর পীর দাবিদার গুষ্ঠী।

আরেকটি নাম হচ্ছে তাবলীগ জামায়াত, তাবলীগ মানে ধর্ম প্রচার, কেবলমাত্র ধর্মের দাওয়াত দিতে গিয়ে অসংখ নবী রাসূলরা জীবন দিয়েছেন, মার খেয়েছেন, যুগে যুগে সাহাবায়ে কেরামসহ তাবেতাবেঈন থেকে আজ পর্যন্ত অসংখ ইসলামী ব্যক্তিত্ব শহীদ হয়েছেন,মার খেয়েছে,পবিত্র কোরআনে যত জায়গায় সৎকাজের আদেশ দেয়া হয়েছে,তত জায়গায় অসৎকাজের নিষেধও করা হয়েছে,অথচ একশ্রেনীর মানুষ আজ তাবলীগ নামে বিভক্ত কোন প্রকার উদ্দেশ্যহীন ভাবে, ভালো ভালো কথা সবাই বলতে পারে,কিন্তু ভালো কাজ করতে গেলে কিংবা অন্যায়ের বিরুদ্ধে বাঁধা দিতে গেলে মানবতার মুক্তির আন্দোলনের যে বিপ্লব ঘটার কথা,আজ সাধারণ মুসলিমদের যে পরিমান আহাজারী,মার খাচ্ছে সারা বিশ্বব্যাপী, এ কোন ধরনের তাবলীগের কথা বলছো,যাদের কাছে মানবতার পক্ষে কথা বলার মতো নূন্যতম কোন প্রতিবাদ নেই?

ইসলামের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত,যারা রাসূল (সঃ) এর যথাযথ অনুসারী,অথচ এক শ্রেনীর অসাধু লোকগুলো মাঝার ব্যবসা মাঝার ব্যবসা খুলে বসে আছে,ইসলামের জন্য যে সকল লোকগুলো নিজের জানমাল কোরবানী করে দাওয়াত পৌছে দিয়েছেন মানবতার দুয়ারে দুয়ারে, আজ তাদের কবর হয়ে গিয়েছে শ্রেনীর মানুষের কাছে ব্যবসায়িক সেন্টার,অথচ তারা যে ভাবে দাওয়াত দিয়ে গেছেন সেই দাওয়াত তো গ্রহণ করেই নাই, তার আমলেরও খবর নাই,উল্টো তাদের বিকৃত করার জন্য বসে আছে, আবার যে সমস্ত ধান্দাবাজ এই সকল ব্যক্তিদের কলঙ্কিত করে ব্যভসা করছে তারাই আবার কেউ খাদেম বা পীর হয়ে কবর ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছে,মৃত ব্যক্তিদের থেকে বিভিন্ন কিছু প্রার্থনা করছে,অথচ মৃতব্যক্তি মারা গেলে কিছু করা তো দূরের কথা তার আমলের রাস্তাই বন্ধ হয়ে যায় সদকায়ে জারিয়াহ ব্যতীত।

জিকির ইসলামের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়,জিকিরের সহজ বিশ্লেষন করলে আল্লাহকে স্মরণ বুঝায়,প্রতিনিয়ত আপনি আল্লাহকে কিভাবে স্মরণ করবেন তা কোরআন হাদীসেও স্পষ্ট, নামায রোজা হজ্ব যাকাত যাবতীয় যত প্রকারের আমল আছে তা যথাযথ ভাবে আদায়ের নামই হলো জিকির, আপনি যখন যেভাবে আল্লাহকে স্মরণ করতে পারেন, তবে তা অবশ্যই আদবের সাথে হতে হবে,অথচ আজ জিকির মানেই লাফাাফি ফালাফালি, মানুষ দেখলে হাসের,দুনিয়ার আজগুবী কাজ সব কিছুকে জিকিরের ভিতরে ঢুকানো হয়েছে, কতিপয় পীরেরা জিকর শব্দটিকে এভাবেই বিকৃত করে সাধারণ মুসলমানদের সামনে উপস্থাপন করেছে।

দেশের নিবন্ধিত একটি গুরুত্বপূর্ণ সংগঠনের নাম জামায়াতে ইসলামী, এই দলের নামটিও বিভিন্ন জায়গায় কোরআন হাদীসের নির্দেশিত নাম অনুযায়ী, এই দলের ভিতরে জিকির তাবলীগ ইসলামী আন্দোলনসহ সকল প্রকারের যথাযথ শিক্ষা রয়েছে,যা পালন করতে গিয়ে তাদের সফলতার রাস্তা ফাঁসির কাষ্ঠ অতিক্রম করেছে, আজ বিভিন্ন দলে উপদলে বিভক্ত দলগুলো যদি কেবল তাদের দলের নাম অনুযায়ীও আমল করতো তবে ইসলামী কোন দলের সাথেই একে অপরের সাথে দ্বন্দ হতো না,অথবা যদি তারা নিজেরাই নিবন্ধিত দল হিসেবে নিজেরা তাদের নিজেদের দলকে ক্ষমতায় নেয়ার মাধ্যমে ইসলামী আন্দোলনের জন্য কাজ করতো,তবুও একে অপরের সাথে কোন প্রকারের শত্রুতা কিংবা অপপ্রচারের প্রয়োজন হতো না।

তাই এমন বিভ্রান্ত মূলক দলগুলোর কার্যক্রমটি খুবই স্পষ্ট এরা কতটা ধোঁকাবাজ এবং ইসলামের নামে ফেরকা সৃষ্টি করছে, আল্লাহ রাব্বুল আলামীন এদের সম্পর্কে সতর্ক করে বলেন- ”আর তাদের মত হয়ো না, যারা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে এবং নিদর্শন সমূহ আসার পরও বিরোধিতা করতে শুরু করেছে-তাদের জন্যে রয়েছে ভয়ঙ্কর আযাব”। সূরা আলে ইমরান, আয়াত-১০৫)।বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ নামে বিভিন্ন প্রকার বিতর্কিত ইসলামী দলগুলো প্রচারিক কার্যক্রম চালালেও তারা সেই মোতাবেক কাজ করেন না,নামের সাথে দলের কামের কোন মিল নেই, অথচ এমন নাম ব্যবহার করছেন,যা ইসলামের অপরিহার্য বিষয়, তারা যদি শুধু মাত্র এমন বিষয় গুলোর উপরও যদি আমল করতো,তবে সমাজে ইসলামের নামে বিভিন্ন ধরণের ফেরকা বা গুজব সৃষ্টি হতো না।

আল্লাহ আমাদের সকলকে ইসলামের নামে অপপ্রচার মূলক বিভ্রান্ত দলগুলো যারা বিভিন্ন নামে উপনামে ইসলামের নাম ব্যবহার করে,অথচ সেই মোতাবেক ইসলামের কথা বলে না, এমন ধরনের ঈমান ছিনিয়ে আনা ফেরকাবাদী ইখতেলাফ সৃষ্টিকারী দলগুলো থেকে আমাদের হেফাজত করে রাসূল (সঃ) এর শিক্ষা অনুযায়ী যথাযথ ভাবে দ্বীনের উপর অটল করার তাওফীক দান করুক, আমীন।।

লেখক : আবুল বয়ান হেলালী

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *